বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৩২ অপরাহ্ন

এক বাগানেই কোটি টাকা আয়

সৈকত
  • আপডেট করা হয়েছে বুধবার, ২৪ মার্চ, ২০২১
  • ৩০ বার পড়া হয়েছে

৯৬ বিঘা জমিজুড়ে দুই বছর আগে ১২ হাজার ৮০০টি আমের গাছ লাগিয়েছিলেন নওগাঁর সাপাহার উপজেলার কৃষক সাখাওয়াত হাবিব (৪৫)। ১০ মাস আগে সেই বাগানের আমগাছের সারির ফাঁকা জায়গায় বিভিন্ন জাতের ১১ হাজার ৭০০টি বরইগাছ লাগান। আমগাছগুলো থেকে গত বছরই ফলন পান। আর এবারই প্রথম বরইগাছগুলোতে বরই ধরেছে। এক সপ্তাহ ধরে বরই বিক্রি শুরু করেছেন সাখাওয়াত। প্রতিদিন ৭০ থেকে ৮০ মণ বরই নামছে তাঁর বাগান থেকে।

সাখাওয়াতের এই মিশ্র ফলের বাগান উপজেলা সদর থেকে প্রায় চার কিলোমিটার দূরের শিরন্টি ইউনিয়নের ফুটকইল গ্রামে। তাঁর এই বাগান থেকে গত বছর শুধু আম বিক্রি করেছিলেন ২৫ লাখ টাকার। এ বছর মুকুল আসার পরপরই সম্ভাব্য ফলন ধরে নিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছে ৪১ লাখ টাকায় বিক্রির চুক্তি করেছেন। আর বরই বিক্রির আশা করছেন ৭০ লাখ টাকার। সব মিলিয়ে মিশ্র বাগান থেকে এ বছরে প্রায় ১ কোটি ১১ লাখ টাকা আয়ের সম্ভাবনা দেখছেন সাখাওয়াত।

গত ফেব্রুয়ারি থেকে পরিপক্ব হওয়ার পর এ পর্যন্ত বরই বিক্রি হয়েছে ১৭ লাখ টাকার। সাখাওয়াতের এমন সাফল্য দেখে মিশ্র বাগান করার পরামর্শ নিতে অনেকেই যোগাযোগ করছেন তাঁর কাছে।

সম্প্রতি সাখাওয়াতের বাগান গিয়ে আম্রপালি, আশ্বিনা, গৌড়মতি জাতের আমগাছ দেখা যায়। এসব গাছের সারির ফাঁকে আছে বল সুন্দরী, কাশ্মীরি আপেল, বেবি কুল ও থাইকুল জাতের বরইগাছ। আমগাছগুলোতে মুকুল এসেছে। বরইগাছগুলো ফলের ভারে নুয়ে পড়েছে। বাগানে ১০ থেকে ১২ জন শ্রমিক বিভিন্ন দলে ভাগ হয়ে পাকা বরই সংগ্রহ করেন। বাগানেই তা কিনতে আসেন রাজশাহী, পাবনার ব্যবসায়ীরা। জাতভেদে প্রতি মণ বরই পাইকারি বিক্রি হয় ২ হাজার থেকে ২ হাজার ২০০ টাকায়।

বাগানে ঘুরতে ঘুরতে সাখাওয়াত হাবিব বলেন, ২০১৮ সাল থেকে ফুটকইল গ্রামের মাঠে ৯৬ বিঘা জমি ১২ বছরের জন্য ইজারা নিয়েছেন তিনি। বছরে প্রতি বিঘা জমির জন্য মালিকদের ৩০ হাজার টাকা করে দিতে হয়। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে বাগান পরিদর্শনে এসে সাপাহার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আমগাছের সারির ফাঁকা জায়গুলোতে বরইগাছ লাগানোর পরামর্শ দেন। তাঁর পরামর্শমতো চুয়াডাঙ্গার জীবননগর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে বরইয়ের চারা সংগ্রহ করেন। গত বছরের মে মাসে তিনি এসব চারা রোপণ করেন। চারা লাগানোর ৮ মাসের মাথায় ডিসেম্বর মাসে গাছগুলোতে ফুল আসে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ফল পরিপক্ব হয়। এরপর থেকে বিক্রি শুরু করেছেন। ৯৬ বিঘা জমিতে বরই চাষ করতে সাখাওয়াতের খরচ হয়েছে প্রায় ১৫ লাখ টাকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
themesba-lates1749691102