বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৩১ অপরাহ্ন

“বিয়ের জন্য” ঢাকা – চট্টগ্রাম ছয় কিশোর- কিশোরী।

Reporter Name
  • আপডেট করা হয়েছে শনিবার, ১৩ মার্চ, ২০২১
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

ঢাকার ধামরাই এলাকা থেকে পালিয়ে বিয়ে করতে এসে নগরীর কোতোয়ালী থানা পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে অপ্রাপ্তবয়স্ক ৬ কিশোর-কিশোরী। গতকাল শুক্রবার বিকালে চট্টগ্রাম রেলস্টেশন এলাকা থেকে তাদের হেফাজতে নেয়। নগর পুলিশের কোতোয়ালী জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) নোবেল চাকমা আজাদীকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

এসি নোবেল চাকমা বলেন, ৬ কিশোর কিশোরীর মধ্যে একজন ছাড়া সবার বয়স ১২ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে। শুধু ওই একজনের বয়স ১৭ কি ১৮ হবে। তাদের সকলের বাড়ি ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলায়।’ তিনি বলেন, দুপুরে তারা চট্টগ্রাম এসে পৌছায়। এর মধ্যে আমরা খবর পেয়ে তাদের নিরাপদ হেফাজতে নিয়েছি। তাদের পরিবারকে খবর দেয়া হয়েছে। তারা চট্টগ্রাম আসছে। এসে পৌছালে তাদের হাতে ৬ কিশোর-কিশোরীকে হস্তান্তর করবো। এক প্রশ্নের জবাবে নোবেল চাকমা বলেন, এদের মধ্যে তিন জন কিশোরী আর তিন কিশোর। তিন জন তিন জনের প্রেমিক।

গত দুই সপ্তাহ ধরে নিজেরা পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার সকালে সবাই একযোগে বাড়ি থেকে পালিয়ে ঢাকায় এবং সেখান থেকে বিকালের ট্রেনে করে রাতে চলে আসে চট্টগ্রামে।

তাদের মধ্যে যে কিশোরের বাড়ি কুমিল্লার লাকসামে সে জানায়, আগেও সে চট্টগ্রামে এসেছে। তার এক পরিচিত ব্যক্তির নগরীর বন্দরটিলা এলাকায় দোকান আছে বলে সে জানে। সেই পরিচিত ব্যক্তির ভরসায় চট্টগ্রামে এসে থাকা এবং বিয়ের ব্যবস্থা করার বিষয়ে অন্যদের আশ্বস্ত করে।

কিন্তু বৃহস্পতিবার রাতে চট্টগ্রাম এসে বন্দরটিলার ওই এলাকায় গিয়ে দোকানের সন্ধান পায়নি সে, এমনকি তার কোন ফোন নম্বরও তার কাছে নেই।

বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় তাদের কাছে ছিল মাত্র ছয় হাজার টাকা। ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে আসতেই তাদের বেশকিছু টাকা খরচ হয়ে যায়। রাতে অটোরিকশা নিয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরেও পরিচিত ব্যক্তির সন্ধান না পেয়ে অটো চালকের কাছ থেকে রাত যাপনের ব্যবস্থা করে দেওয়ার সহায়তা চায়।

ওই অটোচালক তার নিজের অটো ভাড়া বাবদ সাড়ে ৬০০ টাকা নিয়ে ফ্রি-পোর্ট এলাকায় একটি স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে এক নারীর মাধ্যমে রাতে তাদের থাকার ব্যবস্থা করা হয় একটি বাসায়, যার জন্য ওই নারীকে তাদের দিতে হয়েছে ৭০০ টাকা ঘর ভাড়া।

সকাল থেকে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বাড়ি ফিরে যেতে, সে জন্য তারা বাসের টিকিট করতে গিয়েছিল। কিন্তু টাকা সংকুলান না হওয়ায় রাতের ট্রেনে করে ঢাকায় ফিরতে রেল স্টেশনে গিয়েছিল। আর সেখান থেকে তাদের পুলিশ থানায় নিয়ে আসে।

তবে তারা বিয়ের জন্য শাড়ি ও বাড়ি থেকে আর কিছু কসমেটিকস কিনেছিল। উদ্ধার করা শিক্ষার্থীদের ব্যাগ থেকে এসব উদ্ধার করা হয়।

সহকারী কমিশনার নোবেল বলেন, উদ্ধার হওয়া কিশোর-কিশোরীরা সবাই নিম্নবিত্ত পরিবারের সন্তান। তাদের দুই কিশোরীর মা প্রবাসী শ্রমিক। পারিবারিকভাবে অজ্ঞতা থাকায় তাদের একটি পরিবার বাল্য বিয়ে দেওয়ার আয়োজন করছিল। পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় না হওয়ায় তারা পরিবার ছেড়ে পালিয়ে এসেছে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
themesba-lates1749691102