বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০২:২৪ অপরাহ্ন

ভেজাল মদের চক্রে ৩০ জন

সৈকত
  • আপডেট করা হয়েছে রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১
  • ৩২ বার পড়া হয়েছে

২০-২৫ বছর ধরে বারে কাজ করেছেন নাসির আহমেদ ওরফে রুহুল। তখন থেকে মদ ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ। সে সময়েই হয়ে যায় ভেজাল মদ তৈরির হাতেখড়ি। ভেজাল মদ বানিয়ে খুচরা পর্যায়ে বিক্রিও করতেন। তবে করোনা পরিস্থিতি ‘বড় সুযোগ’ এনে দেয় নাসিরের সামনে। গত বছরের মার্চে ওয়্যারহাউস বন্ধ হয়ে গেলে মদ দুষ্প্রাপ্য হয়ে ওঠে। ‘সুযোগ’ কাজে লাগাতে ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে তিনি গড়ে তোলেন ভেজাল মদের কারখানা। তাঁর নেতৃত্বে একটি চক্র গড়ে ওঠে।

নাসিরের এই চক্রের সরবরাহ করা মদ পানে অন্তত ১১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। নাসিরসহ চক্রের ছয় সদস্য ধরা পড়ার আগে গত নভেম্বর, ডিসেম্বর ও জানুয়ারিতে তাঁরা সোয়া কোটি টাকার ভেজাল মদ বিক্রি করেছেন।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) তদন্তে উঠে এসেছে এসব তথ্য। সম্প্রতি ভেজাল মদ পানে বেশ কয়েকজনের মৃত্যুর পর তদন্তে নেমে নাসিরের এই চক্রের সন্ধান পায় ডিবি। গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে পরিচালিত ডিবির অভিযানে গ্রেপ্তার করা হয় নাসিরসহ ছয়জনকে। তাঁরা এখন কারাগারে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন নাসির আহমেদ, জাহাঙ্গীর আলম, সৈয়দ আল আমিন, মনতোষ চন্দ্র অধিকারী ওরফে আকাশ, রেদুয়ান উল্লাহ ও সাগর ব্যাপারী। চক্রের অন্য সদস্যদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে সাগর ব্যাপারী ছাড়া অন্যরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

অভিযান তদারক কর্মকর্তা ডিবির উপকমিশনার মশিউর রহমান রহমান প্রথম আলোকে জানান, নাসির আহমেদের ওই চক্রে অন্তত ৩০ জনের জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া গেছে। তিনি জানান, তাঁদের কাছে তথ্য আছে চক্রের পলাতক সদস্যরা আবার ভেজাল মদ তৈরির পাঁয়তারা করছেন। তবে পুলিশও তাঁদের গ্রেপ্তারে তৎপর আছে।

ডিবি সূত্র জানায়, ১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ভাটারার খিলবাড়িরটেকে নাসিরের ভেজাল মদ তৈরি কারখানার সন্ধান পাওয়া যায়। সেখান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ ভেজাল মদভর্তি বোতল, বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মদের খালি বোতল ও স্টিকার, জারিকেন ভর্তি স্পিরিটসহ ভেজাল মদ তৈরির বিভিন্ন উপকরণ।

নাসিরসহ গ্রেপ্তার পাঁচজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে উঠে এসেছে ভেজাল মদ বিক্রির এই চক্রের নানা দিক। মামলার তদন্ত-সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নাসির আহমেদ আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে বলেন, গত বছরের ডিসেম্বরে খিলবাড়িরটেকে ১৩ হাজার টাকায় ফ্ল্যাট ভাড়া করেন তিনি। সেখানে গড়ে তোলেন ভেজাল মদের কারখানা। কারিগর হিসেবে নিয়োগ দেন জাহাঙ্গীর আলমকে। ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব দেন আল আমিনকে। তিনি (নাসির) ও জাহাঙ্গীর গুলশান ও বনানী এলাকা থেকে মদের খালি বোতল কিনতেন। এতে বোতলপ্রতি খরচ পড়ত ১০-১৫ টাকা। এ ছাড়া মিটফোর্ড এলাকার মনিরের কাছ থেকে স্পিরিট, বোতলের ছিপি ও স্টিকার সংগ্রহ করতেন তাঁরা। এই কাজের দায়িত্বে ছিলেন জাহাঙ্গীর। তিনি জাহাঙ্গীরকে ভেজাল মদ তৈরি ও মদের বোতলে ছিপি লাগানোর কাজ শিখি  করতেন। গত ডিসেম্বর ও জানুয়ারিতে আল আমিন ২৩০ বোতল ভেজাল মদ রেদুয়ান, জাহিদসহ বিভিন্নজনের কাছে বিক্রি করেন। গত ২৮ জানুয়ারি আল আমিন ১০ বোতল ভেজাল ভদকা রেদুয়ানের কাছে পৌঁছে দেন।

ভেজাল মদের কারিগর জাহাঙ্গীর আলম একসময় ভাঙারি ব্যবসা করতেন। তিনি জবানবন্দিতে বলেন, ২০০০ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত গুলশান ও বনানী এলাকায় ভাঙারি ব্যবসা করতেন। ২০১০ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত কাজ করেছেন একটি ক্লাবের ওয়েটার হিসেবে। গত বছর বন্ধু মিজানের সূত্র ধরে নাসিরের সঙ্গে তাঁর পরিচয়। পরে নাসির তাঁকে মাসিক ২০ হাজার টাকা বেতনে কারিগর হিসেবে নিয়োগ দেন।গত বছরের ২ ডিসেম্বর সৈয়দ আল আমিনকে ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ দেন নাসির। ভেজাল মদ তৈরি হওয়ার পর মদ ব্যবসায়ী ও গ্রাহকদের কাছে বিক্রি ও পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব ছিল তাঁর। জবানবন্দিতে বলেন, রেদোয়ানের কাছে ৭০ বোতল, জাহিদের কাছে ২৪ বোতল, রিয়াজের কাছে ৩১ বোতল ভেজাল মদ বিক্রি করেছেন তিনি। এ ছাড়া অন্য লোকের কাছেও তিনি মদ বিক্রি করেছেন।

ভেজাল মদ পানের ক্ষতি সম্পর্কে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক মো. মুজিবুর রহমান গতকাল শনিবার প্রথম আলোকে বলেন, মিথানল দিয়ে আসবাবপত্র বার্নিশ করা হয়। এটা খাওয়ার জিনিস নয়। মিথানল মানেই বিষ, এর বিষক্রিয়াই মানুষের তাৎক্ষণিক মৃত্যুর কারণ। মিথানল বা স্পিরিট পান করলে কিডনি ও লিভার (যকৃৎ) বিকল হয় এবং চোখ নষ্ট হয়ে যায়।

আর ভেজাল মদ পানের মানসিক ক্ষতি সম্পর্কে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ হেলাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, মিথানল খাওয়ার পর কেউ কোনোভাবে সুস্থ হয়ে উঠলেও তাঁর মধ্যে ধীরে ধীরে মানসিক বৈকল্য দেখা যায়। তাঁর মধ্যে অস্বাভাবিক আচরণ দেখা দেয় ও অস্বাভাবিক চিন্তার সৃষ্টি হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
themesba-lates1749691102