রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ১১:৫১ পূর্বাহ্ন

মরণফাঁদ শহরের প্রতিটি সড়ক।

সৈকত
  • আপডেট করা হয়েছে শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২১
  • ৯ বার পড়া হয়েছে

মরণফাঁদ হয়ে দাঁড়িয়েছে শহরের প্রধান সড়ক ও উপ-সড়কগুলো। প্রতিদিন কোন না কোন দূর্ঘটনা ঘটছে প্রধান সড়ক ও অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে। সড়কগুলোতে উন্নয়ন কাজের নামে দীর্ঘদিন গর্ত করে রাখা হয়েছে। আর এসব গর্তযুক্ত সড়কগুলোই সাধারণ মানুষের ও যানবাহনের এবং যানবাহনের মালিকদের এমনকি যাত্রীদের গলার কাঁটা এখন। যেকারণে এসব সড়কগুলোতে প্রতিদিন ঘটছে দূর্ঘটনা।

দেখা গেছে, শহরের প্রধান সড়কটির কোন না কোন জায়গায় পানির পাইপ স্থাপন ও সড়কের অপর পাশে ড্রেন নির্মাণ করা হচ্ছে। ড্রেনের জন্য গর্ত করে উপড়ে ফেলা মাটিগুলো রাখা হচ্ছে সড়কের অপর পাশে। আর ওই মাটির উপর দিয়ে চলতে হচ্ছে সাধারণ মানুষ এমনকি সমস্ত যানবাহনকে। উঁচু-নিচু হয়ে থাকা মাটির উপর যানবাহন চলতে গিয়ে বেশ কয়েকটি দূর্ঘটনাও ঘটেছে ইতিমধ্যে।

তারাবনিয়ারছড়ার স্থায়ী বাসিন্দা মোহাম্মদ আলম জানান, গত কয়েকদিন আগে তারাবনিয়ারছড়া এলাকায় দুটি বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। সড়কের অপর পাশের সরু রাস্তা দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে ট্রাক যাওয়ার সময় বিকট শব্দে পড়ে যায় মালবাহী একটি ট্রাক।

এসময় ট্রাকে থাকা মালামালের ব্যাপক ক্ষতি হয়। ট্রাকের চালক ও হেলপার জানে বেঁচে গেলেও আহত হন তারা। এর পরেরদিন আরও একটি টমটম পড়ে যায় গর্তে। ওই টমটমে থাকা সমস্ত মালপত্র এবং কয়েকজন লোক মুহুর্তেই গর্তে পড়ে যায়। এভাবে দৈনিক একটা না একটা দূর্ঘটনা ঘটছে এই এলাকায়।

শহরের হাসপাতাল সড়কের সুজন দাশ বলেন, প্রধান সড়কের মতো অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোরও একই অবস্থা। দীর্ঘদিন ধরে ড্রেনের কাজ না করে ফেলে রাখায় সামনের ড্রেনেই পড়ে যায় একটি মালবাহী ট্রাক। এসময় ট্রাকের দুটি চাকা সম্পূর্ণ ড্রেনের ভিতর ঢুকে পড়ে। ওই ট্রাকের আশে পাশে থাকা অন্যান্য গাড়ির চালক ও যাত্রীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এভাবে নিত্যদিন ঘটছে দূর্ঘটনা। আর একবার যদি এরকম ঘটনা ঘটে পুরোদিন যানজট থাকে।

পানবাজার রোডের জাফর আলম জানান, গত ২৬ এপ্রিল রাতে বিকট শব্দ হয় পেট্রোল পাম্প এলাকায়। বের হয়ে দেখি পুরো আস্ত গ্যাস সিলিন্ডারভর্তি একটি ট্রাক পড়ে যায় সড়ক উন্নয়ন কাজের জন্য করা গর্তে। সাধারণ মানুষ ছুটোছুটি করতে গিয়ে আরও কয়েকজন আহত হয়। ভাগ্য ভালো ছিল গ্যাস সিলিন্ডার থেকে অগ্নিকান্ড ঘটেনি। তারপরও সিলিন্ডার ও ট্রাক মালিকের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কোন রকম জানে বেঁচে যায় ট্রাক চালক ও হেলপার।

বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে কোন না কোন দিন উল্টে গিয়ে দুর্ঘটনায় পড়ছে ট্রাক, টমটম, মোটর সাইকেল সহ সংশ্লিষ্ট যানবাহন। এতে অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন অনেকে। এসব দূর্ঘটনায় বড় কোন ক্ষতি না হওয়ার আগেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিষয়গুলো দ্রুত সুরাহা করা দরকার।

কক্সবাজার পৌরসভার প্যানেল মেয়র-২ হেলাল উদ্দিন কবির জানান, চলমান কাজের জন্য মালামালগুলো এখানে পাওয়া না যাওয়ায় এবং লকডাউন চলমান থাকায় কাজের ধীরগতি হয়ে গেছে। তারপরও শ্রমিকদের উপর চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে যাতে দ্রুত সময়ের মধ্যে কাজগুলো সমাপ্ত হয়।

এদিকে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক) ও কক্সবাজার পৌর কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে কক্সবাজারের সচেতন মহল দাবি তুলেছেন; শহরের প্রধান সড়ক ও উপসড়কগুলোর কারণে বড় কোন দূর্ঘটনা না ঘটার আগেই যাতে সঠিক ও কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
themesba-lates1749691102