রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন

১৪৪ বছরের ইতিহাস পাল্টাতে হবে মুমিনুলদের!

সৈকত
  • আপডেট করা হয়েছে রবিবার, ২ মে, ২০২১
  • ৭ বার পড়া হয়েছে

ক্যান্ডি টেস্টে শ্রীলঙ্কান অভিষিক্ত স্পিনার প্রবীণ জয়বিক্রমার দাপটে প্রথম ইনিংসে ২৫১ রানেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। মুমিনুলদের প্রথম ইনিংসের এই ব্যর্থতায় এখন চোখ রাঙাচ্ছে পরাজয়! কারণ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট জিততে হলে মুমিনুলদের পাল্টাতে হবে ১৪৪ বছরের ক্রিকেট ইতিহাস।

২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪১৮ রানের টার্গেট ছুঁয়েছিল ক্যারিবীয়রা। ওটাই এখন পর্যন্ত টেস্ট ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড। ফলে ক্যান্ডিতে দ্বিতীয় টেস্টটি জিততে হলে এশিয়ার মাটিতে তো বটেই, টেস্ট ইতিহাসে ১৪৪ বছরের রেকর্ড পাল্টে দিয়েই জিততে হবে মুমিনুলের দলকে। কারণ জয়ের জন্য যে, বাংলাদেশকে ৪৩৭ রানের লক্ষ্য দিয়েছে শ্রীলঙ্কা! টেস্ট ক্রিকেটে এত রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড এখনও কেউ তৈরি করতে পারেনি। সেক্ষেত্রে অসম্ভব লক্ষ্যই তাড়া করতে হবে তামিম-মুশফিকদের।

আরেকটি পরিসংখ্যানও বাংলাদেশ দলকে হতাশ করবে। টেস্ট ক্রিকেটে ২২০ প্লাস রান তাড়া করে জেতার কোনও ইতিহাস নেই বাংলাদেশের। ২০০৯ সালে দ্বিতীয় সারির ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২১৭ রান তাড়া করে জিতেছিল লাল-সবুজরা। এছাড়া দেশের শততম টেস্টে শ্রীলঙ্কার মাটিতে বাংলাদেশ জিতেছিল ১৯১ রান তাড়া করে।

পরিসংখ্যান বলছে, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডটি ৩৮৮ রানের। ২০১৭ সালে সেটি করেছিল লঙ্কানরাই, প্রতিপক্ষ ছিল জিম্বাবুয়ে। আর পাল্লেকেলেতেও ৩৭৭ রানের বেশি তাড়া করে জেতার নজির নেই। ২০১৫ সালে শ্রীলঙ্কার দেওয়া ৩৭৭ রান তাড়া করে জিতেছিল পাকিস্তান।

এরই মধ্যে ক্যান্ডির উইকেট টার্নিং হয়ে উঠেছে। বল ঘুরছে, আচমকা নিচুও হয়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে মুমিনুলদের সামনে ম্যাচ জেতার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ!

তবে লঙ্কানদের বিপক্ষে শেষ টেস্টে বাংলাদেশকে প্রেরাণা দিচ্ছে এই বছরের চট্টগ্রাম টেস্ট। গত ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশের দেওয়া ৩৯৫ রানের অসম্ভব এক লক্ষ্য তাড়া করতে নামে ৩ উইকেটে জিতে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অভিষিক্ত ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান কাইল মেয়ার্সের অপরাজিত ২১০ রানের কল্যাণে অবিস্মরণীয় এই জয় পায় ক্যারিবীয়রা। এখন দেখার অপেক্ষা ব্যাটসম্যানরা দলকে কতদূর নিয়ে যেতে পারেন!

সর্বোচ্চ রান তাড়া করে ৫টি জয়ের রেকর্ড

১। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও অস্ট্রেলিয়া, সেন্ট জোন্স, ২০০৩-৪১৮/৭

২। দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া, পার্থ, ২০০৮-৪১৪/৪

৩। ভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পোর্ট অব স্পেন, ১৯৭৬-৪০৬/৪

৪। অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ড, লিডস, ১৯৪৮-৪০৪/৩

৫। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও বাংলাদেশ, চট্টগ্রাম, ২০২১-৩৯৫/৭

সংবাদটি শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
themesba-lates1749691102